Projonmo Kantho logo
About Us | Contuct Us | Privacy Policy
ঢাকা, রবিবার, ১৮ নভেম্বর ২০১৮ , সময়- ৪:২১ অপরাহ্ন
Total Visitor: Projonmo Kantho Media Ltd.
শিরোনাম
মহাজোটের সঙ্গে ঐক্যবদ্ধ হয়ে নির্বাচনে যাওয়ার শিগগিরই আনুষ্ঠানিক ঘোষণা আসছে  প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষা শুরু আজ  ভোট পর্যবেক্ষণের জন্য আবেদন শেষ তারিখ ২১ নভেম্বর  আ'লীগ যত রকম ১০ নম্বরি করার করুক, ভোট দেবো, ভোটে থাকব : ড. কামাল হোসেন মহাজোটের আসন বণ্টনের আলোচনা চেয়ে প্রধানমন্ত্রীর নিকট চিঠি   ভাসানীর আদর্শকে ধারণ করে দেশপ্রেম ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উদ্বুদ্ধ হওয়ার আহ্বান  তরুণ ভোটারদের প্রাধান্য দিয়ে প্রণয়ন করা হচ্ছে আ'লীগের ইশতেহার  মওলানা ভাসানীর ৪২তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ  বিশ্ব ইজতেমা স্থগিত করা হয়নি  দাবানলে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৭৪, নিখোঁজ সহস্রাধিক

ইউনিটপ্রতি ২০ পয়সা বা ৬ দশমিক ৩৪ শতাংশ বাড়ানোর প্রস্তাব- ডেসকো


নিজস্ব প্রতিবেদক

আপডেট সময়: ৪ অক্টোবর ২০১৭ ১:২৭ এএম:
ইউনিটপ্রতি ২০ পয়সা বা ৬ দশমিক ৩৪ শতাংশ বাড়ানোর প্রস্তাব- ডেসকো

গ্রাহক পর্যায়ে বিদ্যুতের দাম ইউনিটপ্রতি ২০ পয়সা বা ৬ দশমিক ৩৪ শতাংশ বাড়ানোর প্রস্তাব দিয়েছে ঢাকা ইলেকট্রিক সাপ্লাই কোম্পানি লিমিটেড (ডেসকো)। গতকাল রাজধানীর কারওয়ান বাজারের টিসিবি ভবনে বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন (বিইআরসি) আয়োজিত গণশুনানিতে এ প্রস্তাব দেয় প্রতিষ্ঠানটি। তবে জনবল ব্যয় বেড়ে যাওয়ায় ঘাটতি মেটাতে ডেসকোর প্রতি ইউনিট বিদ্যুতের দাম সর্বোচ্চ ৮ পয়সা বাড়ানো যেতে পারে বলে মত দিয়েছে বিইআরসির কারিগরি মূল্যায়ন কমিটি।

গণশুনানিতে অংশ নিয়ে ডেসকোর পক্ষ থেকে বলা হয়, জনবল, অবকাঠামো, উন্নয়ন প্রকল্প, পরিচালন ও রক্ষণাবেক্ষণে ব্যয় বেড়েছে। এতে প্রতিষ্ঠানটির সরবরাহ ব্যয় হচ্ছে ইউনিটপ্রতি ৭ টাকা ৭২ পয়সা। এর বিপরীতে ইউনিটপ্রতি বর্তমান আয় ৭ টাকা ৫২ পয়সা। এর মধ্যে ৭ টাকা ২০ পয়সা আসছে বিদ্যুৎ বিক্রি থেকে ও বাকি ৩২ পয়সা অন্যান্য আয়। ফলে প্রতি ইউনিটে ঘাটতি থাকছে ২০ পয়সা। ঘাটতি পূরণে ইউনিটপ্রতি ২০ পয়সা দাম বাড়ানোর প্রস্তাব দিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি। পাশাপাশি নতুন করে পাইকারি দাম বৃদ্ধিসাপেক্ষে তা পুনরায় সমন্বয়েরও আবেদন করেছে ডেসকো।

এদিকে গত বছর থেকে বাস্তবায়িত নতুন বেতন কাঠামোর কারণে জনবল ব্যয় বৃদ্ধি পাওয়ায় ডেসকোর বিদ্যুতের দাম ইউনিটপ্রতি ৮ পয়সা বাড়ানো যেতে পারে বলে জানিয়েছে কারিগরি মূল্যায়ন কমিটি। তাদের মূল্যায়নে বলা হয়েছে, ডেসকোর রেট বেজের ওপর রিটার্ন ও ৩৩ কেভি লেভেলে বিদ্যমান পাইকারি মূল্যহার ইউনিটপ্রতি ৫ টাকা ৮৫ পয়সা। এর সঙ্গে প্রতি ইউনিটে হুইলিং চার্জ প্রায় ২৮ পয়সা ধরে নিট রাজস্ব চাহিদা ৭ টাকা ২৭ পয়সা। বিদ্যমান ভারিত গড় খুচরা মূল্য ইউনিটপ্রতি ৭ টাকা ১৯ পয়সা। অর্থাৎ প্রতি ইউনিটে ডেসকোর ঘাটতি ৮ পয়সা।

ডেসকোর নির্বাহী পরিচালক (অর্থ) জানান, ডেসকোর সরবরাহ ব্যবস্থার উন্নয়নের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। এর আওতায় ভূগর্ভস্থ কেবল, ভূগর্ভে সাব স্টেশনসহ কয়েকটি আধুনিক প্রকল্প বাস্তবায়ন করতে আরো ৪ হাজার কোটি টাকা প্রয়োজন হবে। এ যুক্তির বিরোধিতা করে কনজিউমারস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (ক্যাব) জ্বালানি উপদেষ্টা এম শামসুল আলম বলেন, বিদেশী ঠিকাদার ও সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠানের তদবিরে নেয়া অপ্রয়োজনীয় প্রকল্পের কারণে ক্ষতিগ্রস্ত হবে কোম্পানিটি। এতে একসময় আর্থিক সক্ষমতাও হারাতে পারে ডেসকো। এমন উচ্চাভিলাষী উন্নয়নের বিষয়ে তাই সতর্ক থাকা উচিত।

কোম্পানিগুলোর প্রত্যেকটিরই সেবা সম্পর্কে জনমত যাচাই করা উচিত বলে জানান সিপিবি নেতা রুহিন হোসেন প্রিন্স। তিনি বলেন, দাম বাড়ানোর প্রস্তাব নিয়ে আসার আগে কোম্পানিগুলোর ওপর জনমত জরিপ করা উচিত। প্রতি বছর বিলম্ব ফি বাবদ বড় অংকের অর্থ আয় করে ডেসকো। এক্ষেত্রে অভিযোগ রয়েছে, সময়সীমা শেষ হয়ে যাওয়ার পর গ্রাহকদের কাছে বিলের কপি যায়। ফলে সময়মতো বিল দিতে পারেন না গ্রাহকদের অনেকেই।

এর আগে শুনানিতে বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড (বিপিডিবি) পাইকারি পর্যায়ে ১৪ দশমিক ৭৮ ও গ্রাহক পর্যায়ে ১৪ দশমিক ৫ শতাংশ দাম বাড়ানোর প্রস্তাব দেয়। এছাড়া বাংলাদেশ পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ড (বিআরইবি) ১০ দশমিক ৭৫ ও ঢাকা পাওয়ার ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি (ডিপিডিসি) ৬ দশমিক ২৪ শতাংশ দাম বাড়ানোর প্রস্তাব দিয়েছে। আজ ওয়েস্ট জোন পাওয়ার ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানির (ওজোপাডিকো) প্রস্তাবের ওপর শুনানি অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে।


আপনার মন্তব্য লিখুন...

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ন বেআইনি
Top