Projonmo Kantho logo
About Us | Contuct Us | Privacy Policy
ঢাকা, রবিবার, ২২ জুলাই ২০১৮ , সময়- ৫:০০ পূর্বাহ্ন
Total Visitor: Projonmo Kantho Media Ltd.
শিরোনাম
ব্রিটিশ এমপি রুশনারা আলী ঢাকায় সংবর্ধনার দরকার নেই, জনগণ সুখে থাকলেই আমি খুশি : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সংবর্ধনার দরকার নেই, জনগণ সুখে থাকলেই আমি খুশি : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যুদ্ধাপরাধের মামলায় ৩৪তম রায়ের অপেক্ষা প্রধানমন্ত্রীকে গণসংবর্ধনা : সোহরাওয়ার্দী উদ্যান অভিমুখে জনস্রোত নেতৃত্ব নিয়ে দ্বন্দ্ব আরও প্রকট : ভেস্তে যেতে বসেছে যুক্তফ্রন্টের উদ্যোগ শেখের বেটি মোক নয়া ঘর দেল বাহে, মোক দেখার কাইয়ো ছিল না ‘স্বপ্ন’ প্রকল্পটির সুফল পাচ্ছে সাতক্ষীরা ও কুড়িগ্রাম জেলার ৮,৯২৮ দরিদ্র নারী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে গণসংবর্ধনা দিতে প্রস্তুত আওয়ামী লীগ ১৯৭১ সালে যুদ্ধ করে দিল্লির গোলামি করতে বাংলাদেশ স্বাধীন হয়নি : গয়েশ্বর

সৌদি আরব ক্রমাগত ব্যর্থ হচ্ছে: হারতে হারতে হারিয়ে যাবে নাতো !


গোলাম সারোয়ার

আপডেট সময়: ২০ নভেম্বর ২০১৭ ৯:০০ পিএম:
সৌদি আরব ক্রমাগত ব্যর্থ হচ্ছে: হারতে হারতে হারিয়ে যাবে নাতো !

ফেসবুক স্ট্যাটাস : কিছু দিন যাবত সৌদি আরবে রাজনৈতিক ভূমিকম্প হচ্ছে। রাষ্ট্রটির ৩২ বছর বয়সী সিংহাসনের উত্তরাধিকারী যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান ক্ষমতাপ্রাপ্ত হওয়ার পর রাষ্ট্রটি পাগল হয়ে গেছে । তাঁরা রাষ্ট্র পরিচালনা কিংবা ধর্ম কর্ম বাদ দিয়ে শিয়া ধ্বংসে নেমে পড়েছেন। তবে তাঁরা ক্রমাগত ব্যর্থ হচ্ছেন ।

সৌদি যুবরাজ শিয়া ধ্বংসের স্বপ্নে সিরিয়াতে মনোযোগ দিলেন। কিন্তু সেখানে ব্যর্থ হলেন। বলা দরকার আছে, বাশার নিজেও ধোয়া তুলসী পাতা নয়। তিনিও আরেক অবিবেচক স্বৈরশাসক। তবে আরব বসন্তের পর তিউনিসিয়া, মিশর, লিবিয়ার স্বৈরশাসকদের পতন হলেও বাশার আজো টিকে আছেন রাশিয়া ও ইরানের লেজ ধরে। মনে হয় এ যাত্রায় টিকে গেলেন।

যা বলছিলাম, সৌদি যুবরাজ সিরিয়ায় ব্যর্থ হলেন। তারপর লাগলেন ইয়েমেনের শিয়াদের বিরুদ্ধে। এখানেও বিপর্যয়করভাবে ব্যর্থ হয়েছেন। তারপর ইরানের সঙ্গে সুসম্পর্কের কারণে তিনি কাতারকে ধ্বংস করতে এবং আল-জাজিরা চ্যানেল গুঁড়িয়ে দিতে চেয়িছেলন।। এখানেও তিনি অপমানিত ও লাঞ্ছিত হলেন। এখন লেগেছেন লেবাননের বিরুদ্ধে। লেবাননের প্রধানমন্ত্রী প্রয়াত রফিক হারিরি ছেলে সাদ হারিরিকে নিয়ে ষড়যন্ত্রে মেতে উঠলেন। সম্ভবত এখানেও ব্যর্থ হলেন ।

গত অর্ধ শতাব্দীতে সৌদি আরব বহু পাপ করেছেন। এটিও বলার দরকার আছে যে, সেসব পাপের বেশিরভাগ তারা করেছেন মুসলিমদের বিরুদ্ধে। যেমন ইরাক এবং আফগানিস্তান ধ্বংস করতে আমেরিকার সৈন্য সৌদি আরবের মেহমানদারীতে থেকেই ইরাকে-আফগানিস্তানে আক্রমণ করেছেন। অগুন্তি মুসলিম নারী শিশু হত্যার আগে ও পরে আমেরিকান সৈন্যরা সৌদিতেই থেকেছেন এবং এখনও থাকছেন ।

এখন আমরা রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে বার্মার নিষ্ঠুরতার কথা বলি। সৌদি আরব কিন্তু ইয়েমেনে এই রকমই হত্যাযজ্ঞ চলাচ্ছে ইয়েমেনীদের বিরুদ্ধে। ঘটনা হলো রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দেওয়ার একটি বাংলাদেশ থাকাতে তারা পালাতে পেরেছেন। কিন্তু আরবে কেউ কারো নয়।

আরবী বিপন্নরা ইউরোপে আশ্রয় পায়। কিন্তু বিপুল বিরান ভূমি পড়ে থাকলেও তারা কোন শরণার্থীদের জন্যে সীমান্ত খুলে দেয়না । তারা বিনা শ্রমে আমেরিকান সৈন্যদের বেতন দেয়, ভোজ দেয় কিন্তু বহু মুসলিমদের কাজ করিয়েও বেতন দেয়না । আরবীয়রা বহু মুসলিমদের আকামা আটকিয়ে দাস করে রাখতে চায়। তারপর এরা তাদের ছেড়ে চলে গেলে অবৈধ অভিবাসী বলে গ্রেফতার করে ।

মধ্যপ্রাচ্য ইসলাম আসার আগেও বহু পাপ করেছে। এখনো করছে। জাতি হিসেবে তারা বাই নেচার পাপী তাই তাদের মানুষ করার জন্যে এক লক্ষ চব্বিশ হাজার কিংবা দুই লক্ষ চব্বিশ হাজার পয়গম্বর পাঠাতে হয়েছিলো। কিন্তু বাঙ্গালীরা রাসুলের জন্মের প্রায় ছয় শত বছর পর শুনেই ইসলাম গ্রহণ করেছেন। তার মানে বিশ্বাসে ধর্মে এবং সরলতায় বাঙ্গালীরা অনেক ভালো।

সোজা বাংলায় মধ্যপ্রাচ্যে পাপ আর ধরতেছেনা। উপচে পড়ছে । সিয়া সুন্নী দ্বন্দ্বে তারা পৃথিবীকে নরক বানিয়ে রেখেছে। আমরা আহ্বান করবো শিয়া সুন্নী না হয়ে মধ্যপ্রাচ্য শুধু মুসলিম হোক এবং মানুষ হোক...

ফেসবুক স্ট্যাটাস link 


আপনার মন্তব্য লিখুন...

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ন বেআইনি
Top