Projonmo Kantho logo
About Us | Contuct Us | Privacy Policy
ঢাকা, রবিবার, ২২ জুলাই ২০১৮ , সময়- ৫:১৫ পূর্বাহ্ন
Total Visitor: Projonmo Kantho Media Ltd.
শিরোনাম
ব্রিটিশ এমপি রুশনারা আলী ঢাকায় সংবর্ধনার দরকার নেই, জনগণ সুখে থাকলেই আমি খুশি : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সংবর্ধনার দরকার নেই, জনগণ সুখে থাকলেই আমি খুশি : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যুদ্ধাপরাধের মামলায় ৩৪তম রায়ের অপেক্ষা প্রধানমন্ত্রীকে গণসংবর্ধনা : সোহরাওয়ার্দী উদ্যান অভিমুখে জনস্রোত নেতৃত্ব নিয়ে দ্বন্দ্ব আরও প্রকট : ভেস্তে যেতে বসেছে যুক্তফ্রন্টের উদ্যোগ শেখের বেটি মোক নয়া ঘর দেল বাহে, মোক দেখার কাইয়ো ছিল না ‘স্বপ্ন’ প্রকল্পটির সুফল পাচ্ছে সাতক্ষীরা ও কুড়িগ্রাম জেলার ৮,৯২৮ দরিদ্র নারী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে গণসংবর্ধনা দিতে প্রস্তুত আওয়ামী লীগ ১৯৭১ সালে যুদ্ধ করে দিল্লির গোলামি করতে বাংলাদেশ স্বাধীন হয়নি : গয়েশ্বর

ঢাকা উত্তর সিটি নির্বাচন

জামায়াতের প্রার্থী ঘোষণায় জোটের ক্ষোভ


অনলাইন ডেষ্ক

আপডেট সময়: ৯ জানুয়ারী ২০১৮ ৯:২৯ এএম:
জামায়াতের প্রার্থী ঘোষণায় জোটের ক্ষোভ

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন (ডিএনসিসি) উপনির্বাচনে মেয়র পদে বিএনপি জোটের শরিক জামায়াতের প্রার্থী ঘোষণায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছে জোটের অন্য শরিকেরা। নিজেদের মধ্যে আলোচনা ছাড়াই প্রার্থী ঘোষণাকে মেনে নিতে পারছেন না অন্যরা। জোটের সঙ্গে আলোচনা না করেই প্রার্থী ঘোষণাকে শিষ্টাচার বহির্ভূত বলেছেন শরিক দলের কোনো কোনো নেতা। তবে জামায়াতের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, ম্যাডাম (খালেদা জিয়া) তফসিল ঘোষণার আগে অনেকেই প্রার্থী ঘোষণা করে থাকে। জামায়াতও করেছে। তবে জোটের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী যাকে মনোনয়ন দেয়া হবে তাকে সমর্থন জানাবে দলটি।

গতকাল সোমবার রাতে গুলশানে বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার রাজনৈতিক কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত ২০-দলীয় জোটের বৈঠকে অনির্ধারিত ভাবে জামায়াতে ইসলামীর পক্ষ থেকে একজন প্রার্থীর নাম ঘোষণার বিষয়টি উঠে আসে। বৈঠকে উপস্থিত কয়েকজন নেতার সঙ্গে আলাপ কালে এ কথা জানা গেছে।

বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া।

প্রসঙ্গত, গণমাধ্যমের খবর অনুযায়ী ডিএনসিসি নির্বাচনে জামায়াতে তাদের দলীয় নেতা ঢাকা উত্তরের সভাপতি সেলিমউদ্দীনকে প্রার্থী করার ঘোষণা দিয়েছে।

জোটের সঙ্গে আলোচনা ছাড়া এভাবে প্রার্থীর নাম ঘোষণার বিষয়ে শরিক দুটি দলের প্রশ্নের জবাব দেন সেখানে উপস্থিত জামায়াতের কেন্দ্রীয় নেতা আবদুল হালিম। একটি শরিক দলের শীর্ষ নেতা বলেন, ‘হালিম সাহেব বলেছেন, তাঁদের নির্বাচনী তৎপরতা চূড়ান্ত কিছু নয়। নির্বাচন ঘিরে জামায়াতেরও প্রস্তুতি আছে। তবে জোট যে সিদ্ধান্ত নেবে সেটাই জামায়াত মেনে নেবে। এ নিয়ে বিভ্রান্তির কিছু নেই। জোটে সিদ্ধান্তের বাইরে কিছু হবে না।’

অবশ্য জোট নেতা খালেদা জিয়া বিষয়টি নিয়ে কোনো মন্তব্য করেননি।

বৈঠকে উপস্থিত এক নেতা জানান, জোটের কয়েকজন নেতা তাবিথ আউয়ালকে নিয়ে আলোচনা করলেও প্রার্থী হিসেবে তাবিথ চূড়ান্ত এমন কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি।

তিনি আরো জানান, রাজধানীতে আইনজীবীদের নিয়ে একটি মহাসমাবেশ ও ইসলামী দলগুলো নিয়ে আরেকটি সমাবেশ করার সিদ্ধান্ত হয়েছে।

পরে বৈঠকে সিটি করপোরেশন নির্বাচনে জোটবদ্ধ ভাবে অংশ নেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়। এবং প্রার্থী বাছাইয়ের চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়ার ভার জোট প্রধান খালেদা জিয়ার ওপর ন্যস্ত করা হয়।

উত্তরের মেয়র আনিসুল হকের মৃত্যুর কারণে মেয়র পদটি শূণ্য হয়। মঙ্গলবার এই উপনির্বাচনের তফসিল ঘোষণার কথা রয়েছে। সম্ভাব্য ভোটের দিন ২৬ ফেব্রুয়ারি নির্ধারণ করেছে কমিশন।

বৈঠকে সাম্প্রতিক রাজনীতি, খালেদা জিয়ার মামলা, জাতীয় নির্বাচনের মতো বিষয়গুলো আলোচনায় আসে। এছাড়া বৈঠকে সূত্রে জানা গেছে, খালেদা জিয়াকে বাইরে রেখে আগামী নির্বাচনে জোটের কেউ অংশ নেবে না। বিএনপি চেয়ারপারসনকে এমন আশ্বাস দিয়েছেন বৈঠকে অংশ নেয়া জোটের শীর্ষ নেতারা।

বৈঠকে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর ও জোটের শরিক লেবার পার্টির কোনে প্রতিনিধি ছাড়া অন্য সব দলের শীর্ষ নেতারা উপস্থিত ছিলেন।


আপনার মন্তব্য লিখুন...

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ন বেআইনি
Top