Projonmo Kantho logo
About Us | Contuct Us | Privacy Policy
ঢাকা, রবিবার, ১৮ নভেম্বর ২০১৮ , সময়- ৪:৩৩ অপরাহ্ন
Total Visitor: Projonmo Kantho Media Ltd.
শিরোনাম
মহাজোটের সঙ্গে ঐক্যবদ্ধ হয়ে নির্বাচনে যাওয়ার শিগগিরই আনুষ্ঠানিক ঘোষণা আসছে  প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষা শুরু আজ  ভোট পর্যবেক্ষণের জন্য আবেদন শেষ তারিখ ২১ নভেম্বর  আ'লীগ যত রকম ১০ নম্বরি করার করুক, ভোট দেবো, ভোটে থাকব : ড. কামাল হোসেন মহাজোটের আসন বণ্টনের আলোচনা চেয়ে প্রধানমন্ত্রীর নিকট চিঠি   ভাসানীর আদর্শকে ধারণ করে দেশপ্রেম ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উদ্বুদ্ধ হওয়ার আহ্বান  তরুণ ভোটারদের প্রাধান্য দিয়ে প্রণয়ন করা হচ্ছে আ'লীগের ইশতেহার  মওলানা ভাসানীর ৪২তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ  বিশ্ব ইজতেমা স্থগিত করা হয়নি  দাবানলে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৭৪, নিখোঁজ সহস্রাধিক

রংপুরে শীতকালীন সবজি চাষে নতুন দিগন্তের সূচনা


অনলাইন ডেস্ক

আপডেট সময়: ১৬ জানুয়ারী ২০১৮ ১০:২১ এএম:
রংপুরে শীতকালীন সবজি চাষে নতুন দিগন্তের সূচনা

রংপুরে চলতি বছর শীতকালীন সবজি চাষে বিপ্লব ঘটেছে। শীতকালে রবি ফসল হিসেবে মাত্র তিন থেকে চার মাসে কম খরচে বেশি লাভ পাওয়ায় দেশব্যাপী এর সম্ভবনা বেড়েছে। ২০ হাজার ভূমিহীন পরিবার তিস্তায় জেগে ওঠা অব্যবহৃত বালুচরে চার হাজার হেক্টর জমিতে ৮০ কোটি টাকার এক লাখ পাঁচ  হাজার মেট্রিকটন মিষ্টি কুমড়া ও স্কোয়াশসহ সাথী ফসল হিসেবে বিভিন্ন সবজি চাষ করে কর্মসংস্থান এবং দারিদ্র্য নিরসন করেছেন।

বিভাগের আট জেলায় প্রায় এক লাখ হেক্টর জমিতে উৎপাদন হয়েছে ১৮ লাখ মেট্রিকটন সবজি। নদীভাঙন কবলিত ভূমিহীনরা বালুচরে নতুন উদ্ভাবিত কৃষি প্রযুক্তির মাধ্যমে মিষ্টি কুমড়া, স্কোয়াশসহ সাথী ফসল চাষ করে নতুন দিগন্তের সূচনা করেছেন।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, আশ্বিন-কার্তিক মাসে এ অঞ্চলে শ্রমজীবী ও ক্ষুদ্র চাষিরা থাকতেন খুবই বেকায়দায়। আমন ধান লাগানোর পর তাদের হাতে কাজ থাকত না। ফলে গ্রামাঞ্চলের অনেক ক্ষদ্র কৃষক জীবন-জীবিকার তাগিদে ঢাকাসহ বিভিন্ন স্থানে কর্মসংস্থানের সন্ধানে যেতেন। সে পরিস্থিতি পাল্টে গেছে। এখন আর হন্যে হয়ে কাজের সন্ধানে রাজধানীতে ঘুরতে হচ্ছে না তাদের।

পীরগাছা উপজেলার কল্যাণী ইউনিয়নের বুলবুল মিয়া জানান, কয়েক বছর আগেও ধার-দেনা করে সংসার চালাতেন। এখন আর তা লাগে না। সংসারে সচ্ছলতা এসেছে। ফুলকপি, বাঁধাকপি, বেগুন, মূলাসহ অন্যান্য শাকসবজি আবাদ করে ভালোই চলছে তার সংসার। একই কথা জানান মিঠাপুকুর উপজেলার ভাংনি ইউনিয়নের সবজি চাষি ইয়াকুব আলী। তিনিও ৫০ শতক জমিতে বেগুন ও বাঁধাকপি আবাদ করেছেন।


রংপুর কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানা যায়, আট জেলায় শীতকালীন শাকসবজির আবাদ হয়েছে প্রায় এক লাখ হেক্টর জমিতে। প্রতি হেক্টরে ১৬ মেট্রিকটন করে উৎপাদন হয়েছে। সে হিসেবে চলতি মৌসুমে প্রায় ১৮ লাখ মেট্রিকটন শাকসবজি উৎপাদন হয়েছে। প্রতি কেজির দাম গড়ে ২০ টাকা ধরা হলে উৎপাদিত সবজির মূল্য দাঁড়ায় তিন হাজার ৫০০ কোটি টাকার বেশি।

এ ছাড়া গত রবি মৌসুমে রংপুরে প্রায় এক লাখ হেক্টর জমিতে করলা, ফুলকপি, বাঁধাকপি, লালশাক, পুঁইশাক, মূলা, টমেটো ও কুমড়াসহ বিভিন্ন শাকসবজির আবাদ হয়েছিল যা এ অঞ্চলে ক্ষুদ্র ও প্রান্তিক চাষিদের অভাব  মোচনের পাশাপাশি দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নেও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছে।
 


আপনার মন্তব্য লিখুন...

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ন বেআইনি
Top