Projonmo Kantho logo
About Us | Contuct Us | Privacy Policy
ঢাকা, শনিবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮ , সময়- ১০:২৯ অপরাহ্ন
Total Visitor: Projonmo Kantho Media Ltd.
শিরোনাম
খালেদা জিয়ার চিকিৎসা বিতর্ক কেন ? বিএনপি প্রতিনিধিদলের সঙ্গে সাক্ষাত শেষে যা বললেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী | প্রজন্মকণ্ঠ পছন্দের হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য আবেদন খালেদা জিয়ার | প্রজন্মকণ্ঠ খালেদা জিয়া কারাগারের বাইরে থাকার সময়ও জনগণ তার ডাকে সাড়া দেয়নি : ওবায়দুল কাদের বিএনপি-জামায়াত ক্লিনহার্ট অপারেশন চালিয়ে আ'লীগের অসংখ্য নেতাকর্মীকে নির্যাতনের শিকার করেছিল : প্রধানমন্ত্রী  ধর্মমন্ত্রী ও ভূমিমন্ত্রীর  কড়া সমালোচনা করলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে রিজভীর নেতৃত্বে মিছিল করেছে বিএনপি আ'লীগের প্রতিনিধিদলের উত্তরবঙ্গ সফর শুরু । প্রজন্মকণ্ঠ   বিজিবি-বিএসএফ সম্মেলন : সীমান্ত হত্যা শূন্যের কোটায় নামিয়ে আনার অঙ্গীকার | প্রজন্মকণ্ঠ  সেমিফাইনাল নিশ্চিত করতে মাঠে নামছে স্বাগতিক বাংলাদেশ, আগামীকাল | প্রজন্মকণ্ঠ

লালপুরে আমের গাছে আগাম মুকুলের দেখা


মোঃ আশিকুর রহমান টুটুল, নাটোর জেলা প্রতিনিধি

আপডেট সময়: ২৮ জানুয়ারী ২০১৮ ৬:৪৫ পিএম:
লালপুরে আমের গাছে আগাম মুকুলের দেখা

জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব পড়েছে গাছ পালাতেও। পৌষ ও মাঘের শীত শেষে হালকা গরমের সঙ্গে গাছে গাছে আমের মুকুল দেখা দেওয়ার কথা থাকলেও নাটোরের লালপুর উপজেলার আম গাছগুলোতে আগাম মুকুল ধরেছে।

লালপুর উপজেলার বাড়ির আঙ্গিনাই, রাস্তার ধার ও বাগানে আমের গাছে গাছে দেখা মিলেছে আগাম মুকুলের। এতে আনন্দিত এলাকাবাসি। পৌষ শেষ মাঘ মাসের শুরু। ঋতু পরিক্রমায় সময় না হলেও এই অসময়েই আমের গাছে গাছে দেখা দিয়েছে মুকুলের। 

দেশে আমের রাজধানী হিসেবে  রাজশাহী ও চাপাইনবাবগঞ্জ বিখ্যাত হলেও নাটোর জেলা ও এখন আমের জন্য কোন অংশে কম নয়। এই জেলার কৃষক এখন বিভিন্ন জাতের আম বানিজ্যক ভাবে চাষ করছে। নাটোর জেলার উল্লেখযোগ্য জাতের আম গুলো হলো, ফজলি, নেংড়া, খেরসাপতি, গোপালভোগ, আম্রপালি, লকনা অন্যতম। এবং তা লাভ জনক হওয়ায় প্রতি বছরি আম চাষের জমির পরিমান বৃদ্ধি পাচ্ছে। এই অঞ্চলের উৎপাদিত আম এলাকার চাহিদা মিটিয়ে দেশের বিভিন্ন স্থানে রপ্তানি করে থাকে। সরকারি পৃষ্ঠপষোকতা পেলে এই অঞ্চলের আম দেশের বাহিরেও রপ্তানি করা সম্ভব হবে বলে আশা করছেন এলাকার বাগানীরা। 

বাগান মালিক মোস্তফা কাউছার, আবুল হোসেন, প্রভাষক জয়নাল আবেদীন, সান্তুনু, সোহেল রানা জানান, আমের ফলনটা নির্ভর করে সম্পূর্ন আবহাওয়ার উপরে। এ বছরের শুরু হতে না হতেই বাগানে ও বাড়ির আঙ্গিনার গাছ গুলিতে দেখা মিলতে শুরু করেছে আমের মুকুলের। এতে বাগান মালিকদের চোখে রঙ্গিন স্বপ্ন দেখতে শুরু করে। তবে বছরের শুরু থেকেই প্রকোপ শৈত্যপ্রবাহের কারনে বাগানীদের চোখের রঙ্গিন স্বপ্ন ভেঙ্গে মনে কালো মেঘর দাঁনা বাঁধতে শুরু করেছিলে। গত দুই দিনে আবাহাওয়া স্বাভাভিক হওয়ায় এখন তা অনেকটাই কেটে  গেছে। তবে আবহাওয়া অনুকুলে থাকলে এবং কোন প্রকার প্রাকৃতিক বিপর্যায় না ঘটলে এ বছর আমের ফলন ভালো হবে বলে আশা করছেন এই উপজেলার বাগানীরা। 

বছরের শুরুতে কিছু কিছু বাগানের গাছে আগাম মুকুলের দেখা মিলেলেও সব গাছে মুকুল আসতে এখনো কিছু দিন দেরি হবে। গাছে আগাম মুকুল দেখা দেওয়ায় কৃষি বিভাগ এর পরামর্শ অনুযায়ী বিভিন্ন প্রকার রোগ ও পোকামাকরের হাত থেকে মুকুলকে রক্ষা করতে শুরু হয়েছে প্রাথমিক পর্যায়ে বাগানের গাছে গাছে বিভিন্ন প্রকার কীটনাশক স্প্রে করার কাজ।


আপনার মন্তব্য লিখুন...

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ন বেআইনি
Top