Projonmo Kantho logo
About Us | Contuct Us | Privacy Policy
ঢাকা, শনিবার, ২৬ মে ২০১৮ , সময়- ২:১৩ অপরাহ্ন
Total Visitor: Projonmo Kantho Media Ltd.
শিরোনাম
ইসলাম ধর্ম প্রচারে ও প্রসারে শেখ হাসিনার ভূমিকা  সুনামগঞ্জে এ বছরসহ চার বছরে বজ্রপাতে নিহত হয়েছেন ৯০ জন ফুটবলের চীনে জন্ম, ইংল্যান্ড বড় করেছে আর ব্রাজিল দিয়েছে পরিপূর্ণতা কক্সবাজারের তালিকাভুক্ত ইয়াবা গডফাদারা সবাই প্রভাবশালী, নামের তালিকা মাদকবিরোধী অভিযানে ফের ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত ১০ স্বাস্থ্যসেবায় বিশ্বে পাকিস্তান ও ভারতের চেয়ে এগিয়ে রয়েছে বাংলাদেশ        ইয়াবা ব্যবসার সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ড, নতুন আইন আসছে ‘ওরে মন, হবেই হবে’ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সম্মানসূচক ডি.লিট পাচ্ছেন আজ  যাত্রা শুরু করল বিশ্বভারতীর বাংলাদেশ ভবন

আলফার ভারত বিরোধী ষড়যন্ত্রের অন্যতম ঘটনা হল চট্টগ্রামের ১০ ট্রাক অস্ত্র মামলা

হবিগঞ্জের সাতছড়ি অরণ্যে চিনের ট্যাংক বিধ্বংসী রকেট উদ্ধার | প্রজন্মকণ্ঠ  


নিজস্ব প্রতিবেদক, প্রজন্মকণ্ঠ

আপডেট সময়: ৪ ফেব্রুয়ারী ২০১৮ ৬:৫২ পিএম:
হবিগঞ্জের সাতছড়ি অরণ্যে চিনের ট্যাংক বিধ্বংসী রকেট উদ্ধার | প্রজন্মকণ্ঠ  

ভারত সীমান্ত লাগোয়া গভীর অরণ্যে উদ্ধার চিনে তৈরি ট্যাংক বিধ্বংসী রকেট৷ এমনই জানাল ব়্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটেলিয়ন (ব়্যাব)৷ শুক্রবার রাত থেকে বাংলাদেশের হবিগঞ্জের চুনারুঘাটের সাতছড়ি জাতীয় উদ্যান শুরু হয়েছিল অভিযান৷

একদিকে ভারতের ত্রিপুরা রাজ্যে অন্যদিকে বাংলাদেশের হবিগঞ্জের চুনারুঘাট উপজেলা৷ এই সীমান্তবর্তী এলাকায় ছড়িয়ে সাতছড়ি উদ্যান৷ এখান থেকে ২০১৪ সালেও বিপুল পরিমাণ আগ্নেয়াস্ত্র বাজেয়াপ্ত করা হয়৷

শনিবার অভিযানের সমাপ্তি হতেই ব়্যাবের মিডিয়া শাখার প্রধান মুফতি মাহমুদ খান জানান, একটি বাংকারের ভেতর থেকে চিনের তৈরি টাইপ ৬৯ মডেলের দশটি রকেট উদ্ধার করা হয়েছে। উদ্ধার করা ৪০ মিলিমিটার হাই এক্সপ্লোসিভ এই রকেটগুলো অন্তত ১৫০০ মিটারের মধ্যে ট্যাংক বা গাড়ি ধ্বংস করতে পারে৷

মুফতি মাহমুদ খান আরও জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে শুক্রবার সন্ধ্যার পর অস্ত্র উদ্ধার অভিযান শুরু করা হয়। শনিবার দুপুরে সাতছড়ি অরণ্যের মধ্যে একাধিক বাংকারের সন্ধান পাওয়া যায়। এসব বাংকারে তল্লাশি চালিয়ে ১০টি রকেট লঞ্চারের শেল উদ্ধার করা হয়৷ কোন জঙ্গি গোষ্ঠী এই অস্ত্র ভাণ্ডার তৈরি করেছিল তা পরিষ্কার করা হয়নি৷ সীমান্তবর্তী এলাকা হওয়ায় বিচ্ছিন্নতাবাদী কোনো গোষ্ঠী এগুলো মজুদ করেছিল বলেই মনে করা হচ্ছে৷

ভারতের ত্রিপুরা রাজ্যের সীমান্তবর্তী সাতছড়িতে এর আগেও মিলেছে বিপুল আগ্নেয়াস্ত্র৷ অন্তত ৬ বার এখানে অভিযান চালিয়েছে ব়্যাব৷ ২০১৪ সালের ৩ জুন, ২৯ আগস্ট, ২ ও ১৭ সেপ্টেম্বর এবং ১৬ অক্টোবর সেখানে পাঁচ দফা অভিযান চালায় ব়্যাব৷ এর মধ্যে ১৬ সেপ্টেম্বরের অভিযানে ত্রিপুরা পল্লীর একটি বাড়ির ছাগল রাখার ঘরের নিচে একটি বাঙ্কারে ১৪ বস্তা গোলাবারুদ মিলেছিল৷

সাতছড়ি অরণ্য একসময় ভারতের ত্রিপুরা রাজ্যের অন্যতম জঙ্গি সংগঠন অল ত্রিপুরা টাইগার ফোর্স (এটিটিএফ) বা টাইগার গোষ্ঠীর প্রধান ঘাঁটি ছিল৷ এখান থেকেই ভারতে ঢুকে নাশকতা চালাত৷ সংগঠনের প্রধান রণজিৎ দেববর্মাকে গ্রেফতার করে পরে ভারতের হাতে তুলে দেওয়া হয়৷ টাইগার গ্রুপের এই জঙ্গি নেতাকে কড়া নজরদারিতে রাখা হয়েছে ত্রিপুরাতেই৷

উত্তর পূর্বাঞ্চলের প্রধান জঙ্গি সংগঠন আলফা-র একসময়ের ঘাঁটি ছিল সাতছড়ি অরণ্য৷ পরে সংগঠনটির নাম হয়েছে আলফা (স্বাধীনতা)৷ এই সংগঠনের বর্তমান সুপ্রিমো পরেশ বড়ুয়া চিনে আত্মগোপনে থেকে মায়ানমারে জঙ্গি শিবির চালায়৷ জানা গিয়েছে, আলফা তাদের অস্ত্র ও গোলাবারুদ চোরাচালানে এটিটিএফ-এর সাতছড়ি বনাঞ্চলের ঘাঁটি ব্যবহার করত৷

আলফার ভারত বিরোধী ষড়যন্ত্রের অন্যতম ঘটনা হল চট্টগ্রামের ১০ ট্রাক অস্ত্র মামলা৷ বিএনপি-জামাত জোট সরকারের আমলে ২০০৪ সালে বিপুল পরিমাণ অস্ত্র উদ্ধার হয়৷ এই মামলায় জড়িয়ে যান তৎকালীন বাংলাদেশের স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবর ও অন্যতম মন্ত্রী তথা জামাত ইসলামি শীর্ষ নেতা মতিউর রহমান নিজামি৷ ১৯৭১ সালে যুদ্ধপরাধের মামলায় নিজামির ফাঁসি হয়েছে৷ লুৎফুজ্জামান বাবর বন্দি ও ফাঁসির আসামী৷ এই মামলায় পলাতক পরেশ বড়ুয়ার বিরুদ্ধেও মৃত্যুদণ্ডের সাজা বহাল রয়েছে বাংলাদেশে ৷


আপনার মন্তব্য লিখুন...

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ন বেআইনি
Top