Projonmo Kantho logo
About Us | Contuct Us | Privacy Policy
ঢাকা, রবিবার, ২১ অক্টোবর ২০১৮ , সময়- ৩:৫০ অপরাহ্ন
Total Visitor: Projonmo Kantho Media Ltd.
শিরোনাম
লক্ষ লক্ষ তরুণ-তরুণীদের কাঁদিয়ে ‘এবি’ উড়াল দিলেন আকাশে । প্রজন্মকণ্ঠ  কক্সবাজারের টেকনাফে দেশের সবচেয়ে বড় সৌরপ্রকল্প চালু । প্রজন্মকণ্ঠ  জাতীয় নির্বাচনে পর্যবেক্ষক পাঠাবে না ইউরোপীয় ইউনিয়ন, কিন্তু কেন ?  কক্সবাজারে আত্মসমর্পণ করলেন ৬ দস্যু বাহিনীর ৪৩ সদস্য । প্রজন্মকণ্ঠ শেষ ইচ্ছা অনুযায়ী মায়ের কবরের পাশে চির নিদ্রায় আইয়ুব বাচ্চু  প্রিন্স মোহাম্মদ বিন সালমানের সমালোচনা করার কারণেই খাশগজিকে হত্যা করা হয়  জাতীয় পার্টির মহাসমাবেশে হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ ১৮ দফা কর্মসূচি ঘোষণা  দেশের শান্তি ও অগ্রগতি অব্যাহত রাখতে স্বাধীনতাবিরোধী অপশক্তি রোধে সবার প্রতি আহ্বান : রাষ্ট্রপতি কারিগরি শিক্ষা ও বিজ্ঞান শিক্ষাকে বিশেষ গুরুত্ব দিচ্ছি : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ব্যারিস্টার মইনুল হোসেনের সংবাদ ৭ দিন বর্জনের আহ্বান : সাংবাদিক নারী সমাজ 

নিহতদের দেশে আনার খরচ বহন করবে ইউএস-বাংলা


নিজস্ব প্রতিবেদক, প্রজন্মকণ্ঠ

আপডেট সময়: ১৩ মার্চ ২০১৮ ৪:৪৯ পিএম:
নিহতদের দেশে আনার খরচ বহন করবে ইউএস-বাংলা

নেপালে ইউএস-বাংলার বিমান বিধ্বস্তের ঘটনায় নিহত যাত্রীদের মৃতদেহ দেশে আনার খরচ বহন করবে ইউএস-বাংলা কর্তৃপক্ষ। এছাড়া আহতদের চিকিৎসা বাবদ সকল খরচ ইউএস-বাংলা কর্তৃপক্ষ করবে বলেও জানিয়েছে।

মঙ্গলবার (১২মার্চ) ইউএস-বাংলার জেনারেল ম্যানেজার (জনসংযোগ) কামরুল ইসলাম আনুষ্ঠানিক এক সংবাদ সম্মেলনে এ কথা বলেন।দুর্ঘটনায় আহতদের বিষয়ে সার্বক্ষনিক খোঁজ রাখছে বলেও তিনি জানান।

কামরুল ইসলাম বলেন, ‘আমাদের একটা টিম কাঠমান্ডুতে পৌঁছে গেছে। আমরা সহজে এখন সব কিছু করতে পারব। আমাদের সিনিয়রদের সিদ্ধান্ত ছিল সমস্ত ডেডবডি এবং যারা আহত হয়েছে, তাদেরকে দ্রুত নিয়ে আসবে। তাদের চিকিৎসার খবরও নেয়া হচ্ছে। আমাদের ঘোষণা হলো ইউএস বাংলার খরচে সবার চিকিৎসা করা হবে।’

যাত্রীদের বিমার বিষয়ে জানতে চাইলে ইউএস বাংলার কর্মকর্তা বলেন, ‘প্রত্যেকটা এয়ারক্রাফটের ইন্সুরেন্স কাভারেজ থাকে। নিশ্চয় এই ফ্লাইটের সব যাত্রীর ইন্সুরেন্স করা ছিল। সে অনুপাতেই ম্যানেজমেন্ট দেবে।’

অন্য এক প্রশ্নের জবাবে কামরুল বলেন, ‘ক্ষতিপূরণ ম্যানেজমেন্টের ডিসিশন। তবে এ বিষয়ে নানা প্রক্রিয়া আছে। ইট উইল টেক টাইম।’

প্রতিষ্ঠানের বিমান পরিচালনায় এই দুর্ঘটনার কী প্রভাব পড়েছে-জানতে চাইলে কামরুল ইসলাম বলেন, ‘সব ফ্লাইট নরমাল সিডিউল অনুযায়ী চলছে। কিছুক্ষণ আগেও সকালে একটি ফ্লাইট ছেড়ে গেছে।’

অন্য এক প্রশ্নের জবাবে ইউএস বাংলা কর্মকর্তা বলেন, ‘মানুষের মধ্যে আতঙ্ক কাজ করতে পারে। তবে গত সাতে তিন বছরে ইউএস বাংলা ৩৬ হাজার ফ্লাইট পরিচালনা করেছে। বাংলাদেশে ইউএস বাংলা একটি নিরাপদ প্রতিষ্ঠান হিসেবে নিজেকে গড়ে তুলেছে।’ ‘একটা এক্সিডেন্ট যে কোনো সময়, যে কোনো কারণে হতে পারে। এ জন্য একটি প্রতিষ্ঠান ধ্বংস হতে পারে না। এ বিষয়ে আমরা আপনাদের (গণমাধ্যমের) সহযোগিতা চাই।’

উল্লেখ্য, সোমবার নেপালের স্থানীয় সময় দুপুর ২টা ২০ মিনিটে ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্সের বিমানটি বিধ্বস্ত হয়। বিধ্বস্ত হওয়ার আগে বিমানটিতে আগুন ধরে যায়। বিমান বিধ্বস্তের ঘটনায় ৫০ জনের নিহত হয়েছেন।

সোমবার পর্যন্ত ১৮ জনকে জীবিত উদ্ধার করার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এদের সিংহভাগই বাংলাদেশি, সব মিলিয়ে ১৪ জন। তবে এদের মধ্যে ক্যাপ্টেন আবিদ সুলতান মারা গেছেন আজ সকালে। আহতদের নেপালের পাঁচটি হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। তাদের দেশে ফিরিয়ে নিয়ে এসে চিকিৎসার ঘোষণা সোমবার সিঙ্গাপুর থেকেই দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তবে ইউএস বাংলা কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, তাদের খরচেই হবে চিকিৎসা।


আপনার মন্তব্য লিখুন...

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ন বেআইনি
Top