Projonmo Kantho logo
About Us | Contuct Us | Privacy Policy
ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৩ নভেম্বর ২০১৮ , সময়- ৪:০০ পূর্বাহ্ন
Total Visitor: Projonmo Kantho Media Ltd.
শিরোনাম
রাখাইনে এখনো রোহিঙ্গাদের জন্য নিরাপদ পরিবেশ তৈরি হয়নি : রিচার্ড অলব্রাইট নির্বাচনী আচরণবিধি মানছেন না সম্ভাব্য প্রার্থীরা বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন সরকারই 'নির্বাচনকালীন সরকার'   মঙ্গলবার পর্যন্ত মনোনয়নপত্র জমা নিবে আওয়ামী লীগ  আন্তর্জাতিক পুরস্কারে মনোনীত শ্রম ও কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী প্রথম দিনে ১৩২৬টি মনোনয়ন ফরম বিক্রি করেছে বিএনপি  পাঁচ বিভাগের ৭টি আসনে একক প্রার্থী পাচ্ছে আওয়ামী লীগ সিইসিকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন বদরুদ্দোজা চৌধুরী ২৩ নয়, এখন ৩০  ৩০০ সংসদীয় আসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োগের নির্দেশনা দিয়েছেন ইসি 

সমকামিতার দায়ে মালয়েশিয়ায় দুই নারীকে বেত্রাঘাত করেছে শরিয়া আদালত । প্রজন্মকণ্ঠ


অনলাইন ডেস্ক

আপডেট সময়: ৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮ ৮:০৪ পিএম:
সমকামিতার দায়ে মালয়েশিয়ায় দুই নারীকে বেত্রাঘাত করেছে শরিয়া আদালত । প্রজন্মকণ্ঠ

লেসবিয়ান সেক্স করার অভিযোগে মালয়েশিয়ার এক শরিয়া আদালত দুই নারীকে বেত্রাঘাত করেছে৷ মানবাধিকার সংস্থাগুলো এই সাজার তীব্র নিন্দা জানিয়েছে৷

ইসলামিক শরিয়া আইন অনুযায়ী, ১৫০ প্রত্যক্ষদর্শীর উপস্থিতিতে সোমবার তাঁদেরকে ছয়টি করে বেতের আঘাত করা হয়৷ এ সময় তাঁরা বোরকা পরে ছিলেন৷ মালয়েশিয়ার উত্তর-পূর্বের প্রদেশ তেরেঙ্গানুতে ৩২ বছর এবং ২২ বছর বয়সি দুই নারীর সাজা কার্যকর করা হয়৷ এই সাজার পাশাপাশি দুই নারীকে আর্থিক জরিমানাও করা হয়৷

মালয়েশিয়ায় রাষ্ট্রীয় আইনের পাশাপাশি দ্বৈত আইনি ব্যবস্থা হিসেবে শরিয়া আইনও চলে৷ ফলে, দেশটির সিভিল আইনে বেত্রাঘাতের শাস্তি নিষিদ্ধ হলেও শরিয়া আইন তা অনুমোদন করে৷ ৬০ শতাংশ মুসলিম অধ্যুষিত দেশটিতে সাম্প্রতিক সময়ে ইসলামিক রক্ষণশীলতা বেড়েই চলেছে৷ দিন দিন বাড়ছে সমকামী গোষ্ঠীর প্রতি বৈষম্য ও সহিংসতা৷

মানবাধিকার সংস্থাগুলো এই ঘটনার তীব্র নিন্দা জানিয়েছে৷ তাঁরা বলছে, প্রথমত, বেত্রাঘাত কোনো শাস্তি হতে পারে না৷ দ্বিতীয়ত, কারো যৌন আকাঙ্খা অপরাধ হিসেবে গণ্য হতে পারে না৷

মালয়েশিয়ার অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল এক বিবৃতিতে বলছে, এই ঘটনা মালয়েশিয়ার জন্য একটি ‘আতঙ্কের দিন' হয়ে থাকবে৷ পাশাপাশি এ ধরনের শারীরিক শাস্তিকে ‘নিষ্ঠুর, অমানবিক এবং অবমাননাকর' বলেও বর্ণনা করেছে সংস্থাটি৷

ইন্দোনেশিয়ার সুমাত্রা দ্বীপে অবস্থিত আচেহ প্রদেশে এখনো শরিয়া আইন চালু আছে৷ ঐ অঞ্চলে দীর্ঘদিন ধরে চলে আসা বিচ্ছিন্নতাবাদী আন্দোলন থামানোর লক্ষ্যে সরকার ২০০১ সালে ঐ প্রদেশের জন্য ‘বিশেষ স্বায়ত্তশাসন’এর ব্যবস্থা করার পরই ইসলামি শরিয়া আইন বাস্তবায়ন শুরু হয়৷ এরপর ২০০৫ সালে শান্তিচুক্তি সই হওয়ার পর আইনের প্রয়োগ আরও জোরালো হয়৷

সংস্থার গবেষক ব়্যাচেল ছোয়া-হোওয়ার্ড বলেন, ‘‘পারস্পরিক সম্মতিতে সমকামী সম্পর্ক গড়ে তোলায় দুই জন মানুষকে যে বর্বরোচিত শাস্তি দেয়া হলো, তাতে মানবাধিকারের উন্নয়ন ঘটাতে সরকারের চেষ্টা ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে৷''

জাস্টিস ফর সিস্টার্স নামের একটি নারী অধিকার সংগঠনের মুখপাত্র থিলাগা সুলাথিরেহ এই ঘটনাকে ‘মালয়েশিয়ার মানবাধিকার পরিস্থিতির চরম অবনতি' বলে বর্ণনা করেছেন৷ র ডেপুটি প্রেসিডেন্ট আবদুল রহিম সিনোয়ান অবশ্য এই শাস্তিকে কঠোর বা যন্ত্রণাদায়ক বলে মানতে রাজি নন৷ তিনি বলছেন, এমন শাস্তির উদ্দেশ্য নারীদের ‘একটু শিক্ষা দেয়া এবং অনুশোচনা করতে সাহায্য করা'৷

মালয়েশিয়ায় সমকামী ও তৃতীয় লিঙ্গের প্রতি অসহিষ্ণুতা দিন দিন বেড়েই চলেছে৷ দক্ষিণের এক প্রদেশে গত মাসে কিছু লোক মিলে তৃতীয় লিঙ্গের এক ব্যক্তিকে পিটিয়ে গুরুতর আহত করেছেন৷ কয়েক সপ্তাহ আগে একটি প্রদর্শনী থেকে দুই সমকামী অ্যাক্টিভিস্টের ছবি সরিয়ে ফেলা হয়৷ পরে দেশটির ধর্মবিষয়ক মন্ত্রী মুজাহিদ ইউসুফ রাওয়া সাংবাদিকদের বলেন, সরকার সমকামের প্রচার সমর্থন করে না৷


আপনার মন্তব্য লিখুন...

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ন বেআইনি
Top