Projonmo Kantho logo
About Us | Contuct Us | Privacy Policy
ঢাকা, বুধবার, ২৩ জানুয়ারী ২০১৯ , সময়- ৬:৪৪ পূর্বাহ্ন
Total Visitor: Projonmo Kantho Media Ltd.
শিরোনাম
যুবলীগ ও আ'লীগের দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ, গুলিবিদ্ধ ১০ গণতন্ত্র ও উন্নয়ন একসঙ্গে চলবে : প্রধানমন্ত্রী দুদকের পরিচালক সাময়িক বরখাস্ত ঢাকা উত্তর সিটি নির্বাচন ২৮ ফেব্রুয়ারি ১০টি অঞ্চলে পাঁচ ধাপে অনুষ্ঠিত হবে নির্বাচন আওয়ামী লীগ দেশ চালাতে পারবে না : রব ৫ কোম্পানির পানি মানহীন : বিএসটিআই পরিকাঠামো উন্নয়নে বিপুল অর্থ ঋণ দিচ্ছে চিন বার্ধক্যজনিত নানা জটিলতায় ভুগছেন এরশাদ  মুন্সিগঞ্জের ট্রলারডুবি যে সত্যগুলো উন্মোচন করল

বাংলাদেশ ব্যাংকের টাকা চুরির নেপথ্যে উত্তর কোরিয়ার এই হ্যাকার !


প্রজন্মকণ্ঠ অনলাইন রিপোর্ট

আপডেট সময়: ৭ সেপ্টেম্বর ২০১৮ ৯:৩১ পিএম:
বাংলাদেশ ব্যাংকের টাকা চুরির নেপথ্যে উত্তর কোরিয়ার এই হ্যাকার !

বাংলাদেশ ব্যাংকের টাকা চুরিসহ বিশ্বজুড়ে কয়েকটি নাটকীয় হ্যাকিংয়ের ঘটনায় যুক্তরাষ্ট্র উত্তর কোরিয়ার এক হ্যাকারকে দায়ী করেছে। পার্ক জিন হিয়ক নামের ওই ব্যক্তি উত্তর কোরিয়ার সরকারের হয়ে এসব হ্যাকিং করে বলে যুক্তরাষ্ট্র দাবি করছে। খবর: আলজাজিরা, ভয়েস অব আমেরিকা, বিবিসি।

পার্ক জিন হিয়ক ২০১৪ সালে সনি পিকচার্স হামলা, ২০১৬ সালে বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় ব্যাংকের টাকা চুরি এবং ২০১৭ সালে ওয়ানাক্রাই ভাইরাস তৈরি করেছেন বলে মনে করা হচ্ছে। বৃহস্পতিবার যুক্তরাষ্ট্র আনুষ্ঠানিকভাবে উত্তর কোরিয়ার এই হ্যাকারের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেছে। একই সঙ্গে তার বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞাও জারি করা হয়েছে।

মার্কিন কর্তৃপক্ষ অভিযোগ করছে, পার্ক জিন হিয়ক একটি বড় হ্যাকার চক্রের সঙ্গে কাজ করতো। ২০১৭ সালে ‘ওয়ানাক্রাই’ নামের একটি ‘র‍্যানসামওয়্যার’ বিশ্বজুড়ে প্রায় তিন লাখ কম্পিউটারকে বিকল করে দেয়। সেটি হিয়কের দলের কাজ বলে মনে করা হয়।

ধারনা করা হচ্ছে, ২০১৪ সালে সনি করপোরেশনের ওপর সাইবার হামলার পেছনেও তারা ছিল। মার্কিন কর্তৃপক্ষ আরও অভিযোগ করছে, ২০১৬ সালে বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় ব্যাংকে সাইবার হামলার পেছনেও ছিল এই একই চক্র।

ওই বছর ৫ ফেব্রুয়ারি যুক্তরাষ্ট্রের ফেডারেল রিজার্ভ ব্যাংক থেকে জালিয়াতি করে সুইফট কোডের মাধ্যমে বাংলাদেশ ব্যাংকের আট কোটি ১০ লাখ ডলার চুরি হয়ে যায়। স্থানান্তরিত এসব টাকা ফিলিপাইনে পাঠানো হয়। দেশের অভ্যন্তরের কোনো একটি চক্রের সহায়তায় হ্যাকার গ্রুপ রিজার্ভের অর্থ পাচার করেছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

মার্কিন কর্তৃপক্ষ বলছে, পার্ক জিন হিয়ক ছিল ‘ল্যাজারাস গ্রপ’ নামক একটি হ্যাকার টিমের অংশ। যুক্তরাষ্ট্রের একটি প্রতিরক্ষা ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান লকহিড মার্টিন করপোরেশনকে তারা টার্গেট করেছিল। কিন্তু সফল হতে পারেনি।

তবে এর আগে ২০১৪ সালে এরা সনি করপোরেশনে একটি বড় সাইবার হামল চালায়। সেখান থেকে তারা অনেক তথ্য চুরি করে। অনেক তথ্য নষ্ট করে ফেলে। এই হামলাটি চালানো হয়েছিল ‘দ্য ইন্টারভিউ’ নামে একটি ছবি নিয়ে উত্তর কোরিয়ার ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়ার পর।

ছবিটিতে উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং উনের আদলে একটি চরিত্র ছিল। এতে দেখানো হয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের সহায়তায় তাকে হত্যা করা হয়েছে। উত্তর কোরিয়া চাইছিল, সনি করপোরেশন যেন এই ছবি না বানায়।

পার্ক জিন হিয়ক ফেসবুকে এবং টুইটারে ভিন্ন ভিন্ন নামে অ্যাকাউন্ট খুলে উত্তর কোরিয়ার নানা ম্যালওয়্যারের লিংক পাঠাতো লোকজনের কাছে।

তবে তারা সবচেয়ে মারাত্মক সাইবার হামলাটি চালায় ‘ওয়ানাক্রাই র‍্যানসামওয়্যার’ দিয়ে। ২০১৬ সালে এই সাইবার হামলার শিকার হয় বিশ্বজুড়ে অনেক দেশ এবং কোম্পানি। ব্রিটেনের ন্যাশনাল হেলথ সার্ভিস (এনএইচএস) এই হামলায় অংশত অচল হয়ে পড়েছিল।


আপনার মন্তব্য লিখুন...

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ন বেআইনি
Top