Projonmo Kantho logo
About Us | Contuct Us | Privacy Policy
ঢাকা, সোমবার, ২২ অক্টোবর ২০১৮ , সময়- ৬:১৯ পূর্বাহ্ন
Total Visitor: Projonmo Kantho Media Ltd.
শিরোনাম
এরশাদের বিরুদ্ধে করা মঞ্জুর হত্যা মামলার প্রতিবেদন দাখিল, আগামী ১৮ নভেম্বর নির্বাচন সামনে রেখে শিগগিরই সারাদেশে অবৈধ অস্ত্রের বিরুদ্ধে সাঁড়াশি অভিযান শুরু জিম্বাবুয়ের বিরুদ্ধে ২৮ রানে জয় পেলো বাংলাদেশ  সাম্প্রতিক সৌদি আরব সফর : প্রধানমন্ত্রীর সংবাদ সম্মেলন, আগামীকাল গাজীপুরের বঙ্গবন্ধু হাইটেক সিটির জন্য চালু হচ্ছে ঢাকা-কালিয়াকৈর ট্রেন সার্ভিস শিগগিরই ছোট হচ্ছে মন্ত্রিসভা আপনার কথায় অস্ট্রেলিয়ায় থাকা আমার মেয়েও লজ্জিত : মঈনুলকে ফোনে মির্জা ফখরুল  আমরা আর দুর্নীতিতে বিশ্ব চ্যাম্পিয়ান হতে চাইনা, সমৃদ্ধ উন্নত বাংলাদেশ চাই : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী  সিলেটে সমাবেশ করার অনুমতি পেয়েছে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট  ইমরুলের সেঞ্চুরিতে ৮ উইকেট হারিয়ে টাইগারদের সংগ্রহ ২৭১ রান

গোপালগঞ্জে শারদীয় দুর্গোৎসবকে ঘিরে শুরু হয়েছে ব্যাপক প্রস্তুতি


প্রজন্মকণ্ঠ অনলাইন রিপোর্ট

আপডেট সময়: ৯ অক্টোবর ২০১৮ ৮:০০ পিএম:
গোপালগঞ্জে শারদীয় দুর্গোৎসবকে ঘিরে শুরু হয়েছে ব্যাপক প্রস্তুতি

শারদীয় দুর্গোৎসবকে ঘিরে গোপালগঞ্জে শুরু হয়েছে ব্যাপক প্রস্তুতি। এ বছরও গোপালগঞ্জে ১হাজার ১শ ৯৭টি মন্দিরে পূজা অনুষ্ঠিত হচ্ছে।

জেলার বিভিন্ন মন্দির ঘুরে দেখা গেছে, শারদীয়া দূর্গোৎসবকে ঘিরে ঢাকের বাজনা, উলুধ্বনি ও আরতিতে মুখরিত শহর, পাড়া-মহল্লা ও গ্রাম। গোপালগঞ্জ জেলার সদর উপজেলায় সবচেয়ে বেশি ৩০৫টি মন্দিরে পূজা অনুষ্ঠিত হচ্ছে। এছাড়া মুকসুদপুর উপজেলায় ২৮৯টি, কোটালীপাড়া উপজেলায় ২৮০টি, কাশিয়ানী উপজেলায় ২৩৭টি এবং টুঙ্গিপাড়া উপজেলায় ৮৬টি মন্দিরে পূজা অনুষ্ঠিত হচ্ছে।

আগামী ১৫ অক্টোবর মহাষষ্ঠিতে দেবী বোধনের মধ্য দিয়ে শুরু হবে পূজার আনুষ্ঠানিকতা। চলবে আগামী ১৯ অক্টোবর পর্যন্ত। এ মুহূর্তে পূজার মন্ডপ সাজানো থেকে শুরু করে আনুসাঙ্গিক কাজে ব্যস্ত রয়েছেন আয়োজকেরা।

মৃৎশিল্পী রনজিৎ পাল ও রবীন্দ্রনাথ পাল জানালেন, এবছর একেকজন শিল্পী ৪ থেকে ৬ টি করে প্রতিমা তৈরি করেছেন। আয়োজক রমেন বিশ্বাস, দুলাল বিশ্বাস, টিটু বৈদ্য, জানালেন, ইতিমধ্যে প্রতিমা তৈরির কাজ শেষ হয়েছে। এখন চলছে স্টেজ, লাইটিং, তোরণ নির্মাণের কাজ। সড়কগুলোতে চলছে আলোকসজ্জার কাজ।

বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ, গোপালগঞ্জ জেলা শাখার সভাপতি ডা: অসিত কুমার মল্লিক জানান, আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতি বজায় রাখতে পূজা উদযাপন পরিষদের উদ্যোগে প্রতিটি মন্দিরে নিজস্ব নিরাপত্তা ব্যবস্থার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী আগের মত এ বছরও নিরাপত্তা নিশ্চিত করছেন।

গোপালগঞ্জের পুলিশ সুপার মুহাম্মদ সাইদুর রহমান খান জানান, মন্ডপগুলোতে আনসারের পাশাপাশি পুলিশ থাকবে। এছাড়া পুলিশি নজরদারি বৃদ্ধি করা হবে। মোবাইল টিম নিয়মিত টহল কার্যক্রম চালিয়ে যাবে। সেই সাথে একটি মনিটরিং টিম গঠন করা হচ্ছে। কেউ উৎসবে বিঘ্ন ঘটালে তাকে আইনের আওতায় আনা হবে।


আপনার মন্তব্য লিখুন...

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ন বেআইনি
Top